ইতিহাস, সংস্কৃতি ও সৌন্দর্যে ভরপুর উত্তরপ্রদেশের এই ৬ টি স্থান, দেখে মন ভরে যাবে আপনারও

উত্তরপ্রদেশ (Uttarprodesh) রাজ্য হল ভারতের উত্তরাঞ্চলে অবস্থিত একটি ধর্মীয় ও প্রধান পর্যটন রাজ্য। এই রাজ্যের উত্তরে হিমালয় এবং পাদদেশে পবিত্র গঙ্গা নদী প্রবাহিত। ভগবান শ্রী রাম চন্দ্র এবং শ্রী কৃষ্ণের জন্মস্থান হওয়ার জন্য এই রাজ্যটি বেশ জনপ্রিয়। এটি ভারতের সবচেয়ে জনবহুল রাজ্য। এই রাজ্যে এমন অনেক শহর রয়েছে যা ধর্মীয় বিশ্বাসের সাথে জড়িত। প্রতি বছর দেশ-বিদেশের হাজার হাজার মানুষ পবিত্র গঙ্গা নদীর তীরে উত্তরপ্রদেশের প্রয়াগরাজে আসেন এবং পবিত্র গঙ্গা নদীতে স্নান করেন।

প্রাচীন সাংস্কৃতিক এবং এর সুন্দর স্থাপত্য শিল্পের জন্য খুব বিখ্যাত বলে বিবেচিত হয় উত্তরপ্রদেশ। এখানে অযোধ্যা, ভগবান শ্রী রামের জন্মস্থান এবং মথুরা, ভগবান শ্রী কৃষ্ণের জন্মস্থানের মতো আরও অনেক সুন্দর ও ঐতিহ্যবাহী পর্যটন স্থান রয়েছে। আলোচ্য বিষয়, উত্তরপ্রদেশের সেই সব ধর্মীয় স্থান সম্পর্কে যা গোটা বিশ্বে পরিচিত।

অযোধ্যা (Ayodha)

উত্তর প্রদেশের এই শহর অযোধ্যা হল, ভগবান শ্রী “রাম চন্দ্র” এর জন্মস্থান। যা সারা বিশ্বে হিন্দু ধর্মের জন্য বিখ্যাত ধর্মীয় স্থানগুলির মধ্যে একটি। এই অযোধ্যা শহরটি পবিত্র সরয়ু নদীর তীরে অবস্থিত। অযোধ্যা অবধ নামেও পরিচিত, যেটি এই অযোধ্যায় খ্রিস্টপূর্ব ১২ শতকে কননোজ সাম্রাজ্যের উত্থানের সময় ছিল। রাম নবমীর উত্সবটি অযোধ্যায় একটি জাঁকজমকপূর্ণভাবে উদযাপিত হয়, যা দেখতে এবং এখানকার ধর্মীয় ও সাংস্কৃতিক প্রশংসা করতে মানুষ দূর-দূরান্ত থেকে আসে। এর পাশাপাশি এখানে ঝুলা মেলা, মহাশিবরাত্রি, দীপাবলির মতো আরও অনেক ধর্মীয় উৎসব উদযাপিত হয়, যার জাঁকজমক মানুষকে অনেক আকর্ষণ করে।

মথুরা (Mathura)

 

উত্তর প্রদেশে অবস্থিত “মথুরা” শহরটি ভারতের অন্যতম জনপ্রিয় এবং ধর্মীয় পর্যটন স্থান। মথুরাকে ভগবান শ্রী কৃষ্ণের শহর বলা হয় অর্থাৎ ভগবান “শ্রী কৃষ্ণ” এই মথুরায় জন্মগ্রহণ করেছিলেন। এই মথুরা শহরটি যমুনা নদীর তীরে অবস্থিত। ভগবান শ্রী কৃষ্ণের মথুরা শহরটি সুরজন নগরী, মধুপুরী, মধুনগরী, প্রেম নগরী এর মতো আরও অনেক নামে পরিচিত। মহর্ষি বাল্মীকি রামায়ণে মথুরাকে মধুপুর এবং মধুদানব শহর বলে অভিহিত করেছেন। ভারতের উত্তরপ্রদেশের বিখ্যাত পর্যটন স্থান মথুরা।

বারাণসী (Baranasi)

উত্তর প্রদেশে অবস্থিত বারাণসী শহরটিকে হিন্দু ধর্মের অন্যতম জনপ্রিয় এবং বিখ্যাত তীর্থস্থান হিসাবে বিবেচনা করা হয়। বারাণসী শহরটি পবিত্র গঙ্গা নদীর তীরে অবস্থিত। এই শহরটিকে সমগ্র বিশ্বের প্রাচীনতম শহরগুলির মধ্যে একটি হিসাবে বিবেচনা করা হয়। বারাণসীতে গঙ্গা নদীর তীরে দশশ্বমেধ ঘাটে প্রতিদিন পবিত্র গঙ্গার আরতি করা হয়, যা সত্যিই দেখার মত। যার কারণে সেখানকার পরিবেশ হয়ে ওঠে বেশ সুগন্ধি ও বিশুদ্ধ। এর পাশাপাশি গঙ্গায় মাটির প্রদীপে সাঁতার কাটা বেশ সুন্দর ও আকর্ষণীয়।

বৃন্দাবন (Brindabon)

 

বৃন্দাবনকে হিন্দু ধর্মের অন্যতম প্রধান তীর্থস্থান হিসাবে বিবেচনা করা হয়। ভগবান “শ্রী কৃষ্ণ” এই সুন্দর নগরী বৃন্দাবনে তাঁর পুরো শৈশব কাটিয়েছেন। ভগবান শ্রী কৃষ্ণের শৈশবের স্মৃতি জড়িয়ে আছে এই বৃন্দাবনের সাথে। বৃন্দাবন দুটি শব্দের সংমিশ্রণে গঠিত, প্রথমটি বৃন্দা শব্দ থেকে যার আক্ষরিক অর্থ তুলসী এবং দ্বিতীয়টি যার আক্ষরিক অর্থ গ্রোভ বা বন। বৃন্দাবনকে ভালোবাসার শহরও বলা হয়। কোনটি সেবা কুঞ্জের স্থান যেখানে শ্রীকৃষ্ণ রাধা ও গোপীদের সাথে রাসলীলা করতেন।

আগ্রা (Agra)

উত্তরপ্রদেশের আগ্রা শহরটিকে বলা হয় ভালোবাসার প্রতীক। এটি যমুনা নদীর তীরে অবস্থিত একটি খুব সুন্দর জায়গা। বিশ্বের আটটি আশ্চর্যের মধ্যে একটি “তাজমহল” যা আগ্রাতেই অবস্থিত। আগ্রার এই তাজমহল দেখতে দেশ-বিদেশ থেকে প্রচুর মানুষ আসছেন। তাজমহল আগ্রার দুর্দান্ত আকর্ষণের কেন্দ্রে রয়েছে। আগ্রা ঐতিহাসিক, সাংস্কৃতিক, সমৃদ্ধ এবং ধর্মীয় শহরগুলির একটি সংগ্রহ। এর পাশাপাশি আগ্রায় আরও অনেক পর্যটন স্থান রয়েছে।

চিত্রকূট (Chitrakutt)

উত্তরপ্রদেশের বান্দা জেলায় অবস্থিত এই চিত্রকূট শহরটিকে ধর্মীয় ও পবিত্র শহরগুলির মধ্যে একটি হিসাবে বিবেচনা করা হয়। এটি মন্দাকিনী নদীর তীরে অবস্থিত। কথিত আছে যে ভগবান শ্রী রাম যখন ১৪ বছরের জন্য নির্বাসিত হয়েছিলেন, তখন ভগবান শ্রী রাম ১১ বছর এই চিত্রকূট ধামে তাঁর জীবন কাটিয়েছিলেন। এর সাথে ভগবান শ্রী রামের বনবাসের সময় তাঁর ছোট ভাই ভরত এই চিত্রকূটে তাঁর রাজা শ্রী রামের সাথে দেখা করতে এসেছিলেন। আর ধর্মীয় গ্রন্থে বলা হয়েছে যে ব্রহ্মা বিষ্ণু মহেশের অবতার এই চিত্রকূট ধামে জন্মগ্রহণ করেছিলেন। যার কারণে এই চিত্রকূট ধামকে পবিত্র মর্যাদা দেওয়া হয়ে থাকে।

Related Articles

Back to top button