ঘরবাড়ি ছেড়ে জঙ্গলে থাকেন এই ৬০ বছরের মহিলা, পশু পাখির মা হয়ে করছেন সেবা

ভারতের বেশিরভাগ রাজ্যই এখন প্রচণ্ড গরমের সম্মুখীন। এই গরমে সবাই ভুগছে। একইভাবে, উত্তরপ্রদেশের বুন্দেলখণ্ডে গরম পড়ছে, যার কারণে সেখানে বসবাসকারী প্রতিটি প্রাণী বিপাকে পড়েছে। গ্রীষ্মকালে শুধু মানুষই নয় পশুপাখি ও গাছপালাকেও অনেক সমস্যায় পড়তে হয়। কারণ বেশি তাপ থাকলে সূর্যের রশ্মি এত প্রবল হয়ে পড়ে যে সমস্ত নদীর পুকুর শুকিয়ে যায় এবং পশুরা জল পায় না। এমন পরিস্থিতিতে বনে বসবাসকারী পশু-পাখিরা বিরক্ত হয়ে শহরের দিকে চলে যায়। জলবিহীন বুন্দেলখণ্ডের অবস্থাও এমনই হয়েছে।

৬০ বছর বয়সী মহিলা প্রাণীদের জন্য নতুন উদ্যোগ নিয়েছেন

বুন্দেলখণ্ডে জল আনার জন্য নানাভাবে চেষ্টা করা হচ্ছে। তবে পরিস্থিতি এখনও একই রয়ে গেছে। উত্তরপ্রদেশ ও মধ্যপ্রদেশের বনাঞ্চলে জল না পাওয়ায় বন্য প্রাণীদের জীবন এখন বিপদের মুখে। এই সমস্যাটিকে গুরুত্বের সাথে নিয়ে একজন বয়স্ক ভদ্রমহিলা খুব ভালো উদ্যোগ শুরু করেছেন। কাটরার বাসিন্দা ৬০ বছর বয়সী রানী (Rani) ওরফে কুশমার এই বয়সেও কিছু করার উদ্যোগ নিয়েছেন। বিগত কয়েক বছর ধরে বাঘাই নদীর ধারে দেবী স্থানের কাছে একটি কুঁড়েঘরে থাকতেন রানী।

রানী (Rani) পাম্প দিয়ে বানরদের জল দেন

৬০ বছর বয়সে, মানুষ সাধারণত নিজের যত্ন নিতে অক্ষম হয়। তবে মহিলা এই প্রচণ্ড গরমে পশুদের সেবায় ব্যস্ত। এটা করার পেছনে তার উদ্দেশ্য হলো বানরদের জলের সংকট থেকে দূরে রাখা। আসলে, তিনি জলের অভাবে উত্তরপ্রদেশ এবং মধ্যপ্রদেশের জঙ্গলে বসবাসকারী বানরদের জীবনকে বিপদে ফেলতে চান না। পাম্প থেকে জল দেওয়ার সময় রাণী ওই বানরদের নাম ধরে ডাকেন। তিনি বানরদের পাপ্পু, মুন্নু, কালু ইত্যাদি নামে ডাকেন এবং বানরেরা তার কণ্ঠস্বর শুনে যেন তাদের মা আদর করে ডাকছে এমন ভাবেই ছুটে আসে।

গত ৮ বছর ধরে এই কাজ করছেন রানী

এই প্রচন্ড গরমে সেই কণ্ঠহীন বানরদের তৃষ্ণা মেটাতে রানী এই বয়সেও পাম্প চালিয়ে বানরদের জল দেন। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ঘন জঙ্গলের মধ্যে এই পাম্প দিয়ে বানররা তাদের তৃষ্ণা মেটায়। রানি গত ৮ বছর ধরে এই কুঁড়েঘরে বসবাস করছেন এবং সেখানে বানরদের জল দেওয়ার উদ্যোগ শুরু করেছেন। জিজ্ঞাসা করা হলে, রানী বলেন যে যতদিন তিনি বেঁচে থাকবেন ততদিন এই প্রক্রিয়া চলবে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, কাটরা, কালিঞ্জার এলাকায় থাকেন এই বৃদ্ধার পুরো পরিবার।

পরিবার থেকে দূরে ঘন জঙ্গলে পশুদের সেবা করা

বৃদ্ধ রানী বলেন যে তার ৪ ছেলে আছে। তবে কিছুদিন আগে তার এক ছেলে মারা গেছে। বর্তমানেও তার ৩ ছেলে পরিবার নিয়ে গ্রামে থাকে। একটি সম্পূর্ণ পরিবার হওয়া সত্ত্বেও, রানী বনের মাঝখানে একা থাকেন। এই প্রাণীগুলিকে তাদের সবার থেকে দূরে রাখতে সাহায্য করার জন্য। রানীর পরিবার প্রায়ই তার সাথে দেখা করতে বনে যায়। তার থেকে কিছু দূরত্বে ২ বিঘা জমিও রয়েছে। এখন এই বানরগুলোও রাণীর সাথে এতটাই মিশে গেছে যে তাকে ছেড়ে কোথাও যায় না।

রানীর এই কাজ সর্বত্র প্রশংসিত হচ্ছে

তার এই কাজ দেখে অনুপ্রাণিত হয়ে অনেকেই প্রায়ই বনে যান বানরদের খাবার দিতে। তিনি বলেন যে যদি একজন ব্যক্তি আগ্রাসন দেখানোর চেষ্টা করে, তাহলে এই বানররা তাদের আক্রমণ করে। রানির এই উদ্যোগের কথা যারা জানেন তারা সবাই মুগ্ধ হন। এ খবর প্রকাশ্যে আসার পর থেকে বৃদ্ধা রাণীকে নিয়ে আলোচনা চলছে ইউপি ও এমপির বিভিন্ন জেলায়। রনির এই কাজের প্রশংসা করছেন সবাই।

Related Articles

Back to top button