মানুষের উপর রোষে ফেটে পড়বে প্রকৃতি, জানুন ২০২২ সালের ভারত নিয়ে বাবা ভাঙার ভবিষ্যতবাণী

সঠিক জ্যোতিষশাস্ত্র বিদ্যা নিলে ভবিষ্যৎবাণী ইঙ্গিত দিতে পারেন জ্যোতির্বিদরা। তবে একজন দৃষ্টিশক্তিহীন মহিলার ভবিষ্যৎ বলার ক্ষমতা দেখলে আপনার লোম খাড়া হয়ে যাবে। তিনি যা বলে গিয়েছেন, সেটাই ফলে যাচ্ছে একের পর এক। তাঁর ভবিষ্যতবাণী যেকোনো দেশের পরিস্থিতি মুহূর্তের মধ্যে বদলে যেতে পারে।

দৃষ্টিশক্তিহীন অসাধারণ ক্ষমতাবান মহিলার নাম ছিল বাবা ভাঙ্গার। যদিও তিনি এখন বেঁচে নেই।
তিনি এখনও পর্যন্ত যে সব ভবিষ্যতবাণী বলে গিয়েছেন তা হলো।
১. কোভিড-১৯ এখনো গোটা বিশ্ব থেকে পুরোপুরি বিদায় নেয়নি। এরইমধ্যে আগামী বছর আরো এক রকমের নিষ্ক্রিয় ভাইরাস উৎপত্তি হবে। এই ভাইরাসের নিয়ন্ত্রণ করার আগেই পরিস্থিতি অনেকটাই হাতের বাইরে বেরিয়ে যাবে।
২. বিগত আগামী কয়েক বছরের মধ্যে শুরু হয়ে যাবে বিশ্বের অনেক দেশের শহরগুলিতে পানীয় জলের অভাব। এরফলে সাধারণ মানুষকে জলের জন্য কষ্ট পেতে দেখা যাবে।

৩. এশিয়া মহাদেশে এবং অস্ট্রেলিয়াতে ভয়াবহ ভূমিকম্পের সম্ভাবনা আছে ২০২২এ।
৪. আগামী বছরে ভারতের তাপমাত্রা অস্বাভাবিক ভাবে বেড়ে যাবে এবং এর ফলে পঙ্গপাল হামলা হওয়ার সম্ভাবনা আছে।
৫. বর্তমান সময়ে মানুষ অনেকটাই ভার্চুয়াল দুনিয়ার ওপর নির্ভরশীল হয়ে পড়েছে। যত দিন যাবে ভার্চুয়াল দুনিয়ায় তারা আরো বেশি সময় কাটাতে শুরু করবে এবং প্রযুক্তির প্রতি আকর্ষণ বাড়বে।

বাবা ভাঙ্গারের জন্ম ১৯১১ সালে। তিনি জন্মের পর থেকে অন্ধ ছিলেন না, কিন্তু একবার টর্নেডোর প্রচন্ড হাওয়ায় তিনি আছড়ে এক জায়গা থেকে আরেক জায়গায় পড়েন। এর ফলে তার দুটো চোখ হারায়। কিন্তু ভবিষ্যৎবাণী দর্শনের মত এক অসাধারণ ক্ষমতা তাঁর মধ্যে জন্ম নেয়। তার অনুগামীরা এটাই বিশ্বাস তিনি৫০৭৯ সাল পর্যন্ত ভবিষ্যতবাণী গণনা করে গেছেন। তাঁর মৃত্যু হয় ১৯৯৬ সালে। তখন তাঁর বয়স হয়েছিল ৮৫ বছর।

Related Articles

Back to top button