এক এত কোটি টাকার মালিক রজনীকান্তের জামাই, দেখলে ঈর্ষায় জ্বলবে বলিউডের তারকারাও

হিন্দি সিনেমা জগৎ নিয়ে জনগনের কৌতূহলের শেষ নেই। বলিউড তারকাদের জীবনযাত্রার কথা বেশিরভাগ মানুষই কম বেশি জানেন। কিন্তু আজ আমরা “দক্ষিণ ভারতের” ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির এক তারকার সম্পর্কে বলতে যাচ্ছি, যার জনপ্রিয়তা শুধু দক্ষিণের ছবিতেই নয়, বলিউডের(মুম্বাই) ছবিতেও রয়েছে।

দক্ষিণের এই জনপ্রিয় নায়ক আর কেউ নয় আমাদের সবার বিশেষ পরিচিত ”ধানুশ”। শুধু দক্ষিনেই নয় গোটা ভারতে তাঁর ব্যাপক জনপ্রিয়তা। এবং তাঁর জীবন যাপন ও বেশ বিলাসবহুল। আজ আমরা আপনাকে অভিনেতা ধানুশের বিলাসবহুল জীবনযাপনের কথা বলতে চলেছি, যা জানলে আপনিও স্তম্ভিত হয়ে যাবেন। খবর অনুযায়ী, অভিনেতা হওয়ার পাশাপাশি ধানুশ একজন পরিচালক, প্রযোজক এবং প্লেব্যাক গায়কও।

২০১৩ সালে তার গাওয়া ‘কোলাভেরি ডি ‘ গানটি এতটাই বিখ্যাত হয়েছিল যে তাঁর জনপ্রিয়তা আকাশ ছোঁয়া হয়ে যায়। গানটি তাকে রাতারাতি তারকা বানিয়ে দেয়। একই বছর ‘রানজানা’ ছবির মাধ্যমে বলিউডে অভিষেক হয় তার। এই ছবি বক্স অফিসে সুপার হিট হয়ে যাওয়ায় তাঁর নাম আরও বেশি ছড়িয়ে পড়ে গোটা দেশে।আজ তিনি কোটি মানুষের হৃদয়ে জায়গা করেনিয়েছেন অসাধারণ অভিনয়ের ও গনের দ্বারা।

“ধানুশ” এর আরও একটা বিশেষ পরিচয় রয়েছে, দক্ষিনের ছবির সুপারস্টার “রজনীকান্তের” জামাই তিনি। ২০০৪ সালে রজনীকান্তের মেয়ে ঐশ্বরিয়াকে বিয়ে করেছিলেন ধানুশ। বর্তমানে তিনি এখন তিন(৩) সন্তানের বাবাও। খুব কম মানুষই জানেন যে ধানুশের আসল নাম ”ভেঙ্কটেশ প্রভু কস্তুরী রাজা”।

আজ অভিনেতা ধানুশ চলচ্চিত্রে তার কাজের জন্য 8 কোটি টাকারও বেশি চার্জ করেন। যেখানে তার বার্ষিক আয় প্রায় 15 কোটি টাকা। অর্থাৎ মাসে প্রায় ১ কোটির ও বেশি (রুপি) আয় করেন। তিনি এই অর্থ উপার্জন করেন শুধু চলচ্চিত্র থেকেই নয়, পাশাপাশি বিজ্ঞাপন এবং ব্র্যান্ডের প্রচার থেকেও। ২০২১ সালে ধানুশের মোট সম্পত্তির পরিমাণ প্রায় ১৬০ কোটি টাকা বলে জানা যায়। চেন্নাইয়ের যে বাংলোতে ধানুশ তাঁর পরিবারকে নিয়ে থাকেন তার দাম প্রায় ২০ থেকে ২৫ কোটি টাকা। শুধু তাই নয় ৭ কোটি টাকা দামের গাড়িও ব্যবহার করেন এই দক্ষিনের সুপার স্টার।