Combodia তে পাওয়া গেলো বিশ্বের সবথেকে বড়ো মাছ, সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল ছবি

পৃথিবীতে এমন অনেক প্রাণী রয়েছে যা সময়ের সাথে বিলুপ্ত হয়ে গেছে। তবে ভারসাম্য রক্ষার জন্য আবার নতুন প্রজাতির প্রাণীর সৃষ্টিও হয়েছে। এটাই প্রকৃতির নিয়ম। তবে এরকমও অনেক প্রাণী রয়েছে যাদের অস্তিত্বর ব্যাপারে এখনো বিজ্ঞানিরা জানেনা অথচ এই প্রাণী গুলি পৃথিবীর বুকে বসবাস করে চলেছে। আসলে এইসব প্রাণীরা মানুষের নজর থেকে অনেক দূরে বসবাস করে তাই মানুষ এদের অস্তিত্বর বিষয় জানে না। তবে কখনো কখনো এইসব প্রাণীরা মানুষের নজরে ভুল করে চলে আসে আর তখনই বিজ্ঞানীরা পরীক্ষা করে নতুন প্রাণী আবিষ্কারের বিষয় সবাইকে জানায় এবং এই ভাবেই বিভিন্ন নতুন প্রজাতির সৃষ্টির বিষয় আমরা জানতে পেরেছি। আজ আমরা আমাদের আর্টিকেলে কম্বোডিয়া (Combodia)সম্প্রতি আবিষ্কার হওয়া সবচেয়ে বড় মাছের প্রজাতির বিষয় আলোচনা করবো। এখনো পর্যন্ত পৃথিবীর সবচেয়ে বড় মাছ ছিল তিমি যা নোনা জলে বসবাস করতো কিন্তু এখন তিমির থেকে বড় যে মাছ আবিষ্কার হয়েছে সেটি মিঠা ও পরিষ্কার জলে বসবাস করে।

১৭ জীব বিজ্ঞানী জেব হোগান বিশ্বের বৃহত্তম মিঠা ও পরিষ্কার জলের মাছ (world’s biggest fish)আবিষ্কার করে রেকর্ড তৈরি করে দিয়েছেন। এই ১৩ই জুন ২০২২-এ জেব হোগান এই মাছকে নিয়ে তার গবেষণার কাজ শেষ করেছেন। জেব হোগান ও তার দল একসাথে মিলে একটি দৈত্যাকার স্টিংগ মাছ (Sting fish) আবিষ্কার করেছিলেন। পরিষ্কার জলের সবচেয়ে বৃহত্তম মাছ বলে এটিকে গণ্য করা হচ্ছে।

Sting fish

এর আগে ২০০৫ এই ধরনের মাছ পাওয়া গেছিল

কম্বোডিয়ার মেকং নদীর থেকে আবিষ্কৃত এই বৃহত্তম মাছের দৈর্ঘ্য ১৩ ফুট ও ওজন ৩০০ কেজি বলা হচ্ছে। তবে ২০০৫ সালে থাইল্যান্ডে ক্যাটফিশ নামে একটি মাছ আবিষ্কার করা হয়েছিল। তখন এটিকে পরিষ্কার জলের সবচেয়ে বৃহত্তম মাছ হিসেবে গণ্য করা হয়েছিল। তবে এখন আবিষ্কৃত স্টিংরে মাছটি ক্যাটফিশের তুলনায় ৬.৮ কেজি বেশি ভারী ও বড়। তাই এখন স্টিংরে মাছটিকে (Sting fish) সবচেয়ে বৃহত্তম মাছ (world’s biggest fish)হিসেবে গণ্য করা হচ্ছে।

Sting fish

ড. হোগানের জানিয়েছেন যে স্টিংরে মাছটি এখনো পর্যন্ত সবচেয়ে বৃহত্তম মিঠা জলের মাছ হিসেবে গণ্য করা হচ্ছে। আর সঙ্গে এটিও জানিয়েনছে যে এই মাছ খুব বিপদজনক কারণ এই মাছের লেজে মারাত্মক পরিমান বিষ থাকে যা এক ফুট দূরত্ব পর্যন্ত পৌঁছাতে পারে। তবে হোগান বলেছেন যে এই মাছ মানুষের জন্য খুব একটা বিপদজনক নয়।

সাধারণত সস্তা প্রোটিনের উৎস হিসেবে পাওয়া এই স্টিংরে মাছটির আবিষ্কারক ড. হোগান দক্ষিণ এশিয়ার নদীর জলজ বৈচিত্র্য রক্ষার জন্য কাজ করা বোর্ডস অফ দ্যা মেকং প্রজেক্টের সদস্য। জেলেরা যখন এই স্টিংরে মাছটিকে ধরেছিল তখন তারা সবার প্রথম ড. হোগানকে এই মাছের বিষয় খবর দিয়েছিল। এর আগে তারা জেও এতো বড় মাছ আগে দেখেনি।

Sting fish

যদিও এর আগেও বড় স্টিংরে মাছ ধরা হয়েছিল। এখন যেই স্টিংরে মাছটিকে ধরা হয়েছে তার একমাস আগে আরেকটি স্টিংরে মাছ ধরা হয়েছিল। সেই স্টিংরে মাছটির ওজন ছিল ১৮১ কেজি। দুটি বড় স্টিংরে মাছ এই বছরই একমাসের তফাতে ধরা পড়েছে। ডাঃ হোগান বলেছেন যে মেকং-এর মতো বিশাল জনসংখ্যার এলাকায় বিশ্বের বৃহত্তম মিঠা জলের মাছ আবিষ্কার হওয়া সত্যি একটি আশ্চর্য ও গর্বের বিষয়।

Related Articles

Back to top button