কামাল করে দেখালো মাধ্যমিকে অসফল এই ব্যাক্তি, মাটি দিয়ে তৈরি করল ফ্রিজ, ফল-সব্জি থাকবে অনেক দিন সতেজ

গ্রীষ্মের ঋতুতে, গলার তৃষ্ণা না মেটা পর্যন্ত সবাই ঠান্ডা জিনিস, বিশেষ করে ঠান্ডা জল খেতে চায়। এমন পরিস্থিতিতে মানুষ ফ্রিজের জল খায়, যা ঠান্ডা হলেও আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। এর বাইরে, NFHS 5-এর তথ্য অনুযায়ী, মাত্র ৩৭% মানুষের কাছে একটি ফ্রিজ রয়েছে। এই পরিসংখ্যানের পরিপ্রেক্ষিতে, একজন ব্যক্তি এমন একটি রেফ্রিজারেটর (Fridge) করেছেন যা সাশ্রয়ী এবং পরিবেশ বান্ধব পাশাপাশি ফল এবং শাকসবজিকে অনেক দিন তাজা রাখে।

কে সেই ব্যক্তি?

মনসুখভাই প্রজাপতি (Mansukhbhai Prajapati) যিনি গুজরাটের বাসিন্দা এবং পেশায় একজন কুমোর। তিনি একটি বৈদ্যুতিক ফ্রিজ (Fridge) উদ্ভাবন করেছেন যা পরিবেশ বান্ধব এবং ফল, দুধ, শাকসবজি অনেক দিন তাজা রাখে। এ ছাড়া তারা গতানুগতিক ধারা ছেড়ে নতুন প্রযুক্তিতে মৃৎশিল্প তৈরি করছেন। মনসুখভাই দশম শ্রেণী পর্যন্ত পড়াশোনা করেছেন কিন্তু ম্যাট্রিকুলেশন পরীক্ষায় অসফল হন।

কুমোর সম্প্রদায় থেকে আসা, তার পরিবার প্রথম থেকেই মৃৎশিল্প তৈরি করত। কুমোরের জীবন কেমন তা কারো কাছে গোপন নয়। তিনি বলেন, মৃৎপাত্র তৈরির জন্য তার মা সকালে ঘুম থেকে উঠে মাটি আনতেন যা থেকে তার বাবা এবং পরিবারের বাকি সদস্যরা একসঙ্গে বাসন তৈরি করতেন। তবে সেই পরিশ্রম করে আয় হয়নি, যার কারণে বাড়ির অবস্থাও ভালো ছিল না।

দশম শ্রেণীতে অসফল

তাদের ছেলে মেয়ে শিক্ষিত হয়ে সমাজে তাদের সম্মান বৃদ্ধি করুক এবং উন্নত জীবন যাপন করুক এটাই প্রত্যেক পিতামাতারই কামনা। মনসুখের বাবা-মাও তাই চেয়েছিলেন কিন্তু মনসুখ তাদের আস্থা রাখতে পারেনি। তিনি তার ১০ তম শ্রেণীর পরীক্ষায় ব্যর্থ হন, ফলস্বরূপ তিনি তার পড়াশোনা চালিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন না। বাড়ির অবস্থা ভালো না থাকায় মনসুখ আর পড়াশোনা না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন।

এমন পরিস্থিতিতে মাত্র ১৫ বছর বয়সে বাবার খোলা চায়ের দোকানে কাজ শুরু করেন। তিনি বলেন, একবার একটি টালি তৈরির কোম্পানির মালিক চা খেতে আসেন। এটাই তার জীবনের টার্নিং পয়েন্ট। টালি কারখানার মালিক তাকে এখানে কাজ করার প্রস্তাব দেন। এই ব্যবসার শুরুতে তিনি প্রথমে দূষণ কমাতে একটি প্যান তৈরি করেন।

এরপর তিনি ২,২০০ বর্গফুট জমিতে ব্যবসা করেন। মনসুখভাই (Mansukhbhai Prajapati) ২ বছরের কঠোর পরিশ্রমের পর সাফল্য পান এবং তিনি মাটির জল পরিশোধক উদ্ভাবন করেন। তবে ২০০১ সালে গুজরাটে ভূমিকম্প হয় যাতে তার অনেক ক্ষতি হয়। এই ঘটনার পরই তিনি একটি মাটির ফ্রিজ আবিষ্কারের কথা ভেবেছিলেন যা বিদ্যুৎ ছাড়া চলে। মনসুখভাই ভাবলেন, কেন মাটি থেকে এমন ফ্রিজ বানাবেন না, যেগুলো চালাতে বিদ্যুৎ লাগে না এবং যাতে ফল ও সবজি সতেজ থাকে।

একই সঙ্গে তিনি এও চেয়েছিলেন যে, যাদের কাছে বেশি টাকা নেই তারাও এটি কিনতে পারে। এই চিন্তা নিয়েই তিনি এগিয়ে যান এবং দীর্ঘ ২ বছর পর মিটিকুল ফ্রিজ তৈরিতে সফল হন। আপনি জানেন যে ফ্রিজের কাজ হল এতে রাখা জিনিসগুলিকে তাজা রাখা। মনসুখভাইয়ের বানানো মাটির ফ্রিজটা বাকি ফ্রিজের মতোই। পার্থক্য শুধু এই যে বাজারে পাওয়া যায় এমন ফ্রিজের দাম অনেক বেশি, যেটা সবাই কিনতে পারে না এবং যা স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। তবে মাটির ফ্রিজের দাম খুবই সস্তা এবং এতেও আপনি ওষুধ, ফলমূল, শাকসবজি ইত্যাদি ৫ দিন রাখতে পারবেন।

Related Articles

Back to top button