মাত্র কয়েক মিনিটে ১৫ টি আশ্চর্যজনক স্কেচ তৈরি করল এই মেয়ে, প্রতিভা দেখে মুগ্ধ স্বয়ং আনন্দ মাহিন্দ্রা! করলেন ভিডিও শেয়ার

সোশ্যাল মিডিয়ার (Social media)  সাথে জুড়ে নেই এরকম মানুষ নেই বললেই চলে। আমরা সোশ্যাল মিডিয়াকে আজকাল বিভিন্ন কারণে ব্যবহার করে থাকি। যেমন কেউ সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করে ব্যবসার কাজের জন্য, জিনিস কেনা-বেচার, কেউ সোশ্যাল মিডিয়া কন্টেন্ট ক্রিয়েক করে উপার্জন করে আবার কেউ কেউ শুধু এন্টারটেন্টমেন্টের জন্য সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করে। আর এন্টারটেন্টমেন্টের জন্য সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করা লোকেদের সংখ্যাই একটু বেশি।

সোশ্যাল মিডিয়ায় (social media) আমরা রোজই অনেক ধরনের ফটো, ভিডিও ও খবর দেখতে পাই। এই সব ভিডিওর মধ্যে কিছু কিছু ভিডিও বা খবর এমন থাকে যা দেখার পর আমরা অবাক হয়ে যাই বা এমন কিছু দেখতে পাই তা দেখে আমাদের হাসতে হাসতে পেট ব্যাথা হয়ে যায় বা এমন কিছু দেখি যা আমাদের মনকে খুশি করে তোলে।সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় এমনি একটি সুন্দর ও মনকে খুশি করা ভিডিও ভাইরাল (Viral video) হচ্ছে যা দেখলে আপনি খুশির সাথে সাথে অবাকও হয়ে যাবেন। আসুন এই আর্টিকেলের মাধ্যমে এই ভিডিওর বিষয় বিস্তারিত জেনেনি।

আমাদের ভারতে ট্যালেন্টেড লোকেদের অভাব নেই। সোশ্যাল মিডিয়ায় মাধ্যমে যখন এই ট্যালেন্টেড লোকেদের ট্যালেন্ট সামনে আসে তখন আমরা সবাই অবাক হয়ে যাই এতো দুর্দান্ত ও সুন্দর প্রতিভা দেখে। সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি ট্যালেন্টেড মেয়ের আঁকার প্রতিভা ঝড়ের বেগে ভাইরাল হচ্ছে। ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে মেয়েটি এক সাথে ১৫ টি বিজ্ঞ ব্যক্তিদের স্কেচ এঁকে ফেলছে। সবাই অবাক হয়ে যাচ্ছে এই মেয়েটির প্রতিভা দেখে এবং ভাবছে মেয়েটা এমন কাজ কি করে করলো?

এমনকি ভারতের শিল্পপতি আনন্দ মাহিন্দ্রা (Anand Mahindra) এই মেয়েটির ভিডিওটি তার একাউন্ট দ্বারা শেয়ার করেছেন। বোঝাই যাচ্ছে যে আনন্দ মাহিন্দ্রা (Anand Mahindra) এই মেয়েটির ট্যালেন্ট দ্বারা অত্যন্ত ইমপ্রেস হয়েছেন। তিনি এই মেয়েটির ভিডিও শেয়ার করার সময় ক্যাপশনে লিখেছেন ‘এটা কি করে সম্ভব? এই মেয়েটি সত্যি একজন প্রতিভাশালী আর্টিস্ট। কিন্তু একসাথে ১৫ জনের চিত্র বা স্কেচ এঁকে ফেলা শিল্পের থেকেও অনেক বেশি কিছু। এটি সত্যি চমৎকার। এই বাচ্চাটির ট্যালেন্টকে অবশ্যই উৎসাহিত করা উচিত। আমি এই বাচ্চাটিকে স্কলারশিপ বা অন্য কোনো সহায়তা করতে পারলে অনেক খুশি হবো”

একটি বিষয় তো নিশ্চিত যে কোনো ব্যক্তি একসাথে দুটি হাত ব্যবহার করে একইসময় ১৫ টি স্কেচ একসাথে এঁকে ফেলা অসম্ভব। কিন্তু এই বাচ্চা মেয়েটি এই অসম্ভব কাজকে সম্ভব করে দেখিয়েছে তাও আবার দুটি নয় একটি হাত ব্যবহার করে। ভিডিওটিতে পরিষ্কার দেখা যাচ্ছে যে বাচ্চা মেয়েটি এক হাত ব্যবহার করে একই সময় ও একসাথে ১৫ জন আলাদা আলাদা দ্বিগজ ব্যক্তির স্কেচ তৈরি করছে। এই স্কেচের ১৫ জন ব্যক্তিদের মধ্যে রয়েছে
জাতির পিতা মহাত্মা গান্ধী, লাল বাহাদুর শাস্ত্রী, চন্দ্র শেখর আজাদ, স্বামী বিবেকানন্দ, রানি লক্ষ্মীবাই, সুভাষ চন্দ্র বোস সহ মোট ১৫ জন ব্যক্তি।

এই ভিডিওটি আলোড হওয়ার কিছুক্ষণের মধ্যেই ঝড়ের বেগে ভাইরাল হতে থাকে। এই ভিডিওটি আপলোড হওয়ার কিছুক্ষণের মধ্যেই ঝড়ের বেগে ভাইরাল হতে থাকে। সেয়ার হওয়ার কিছুক্ষণের মধ্যেই ভিডিওটি ৫০০০০ মানুষ দেখে ফেলে। আর ১১০০০-এর বেশি মানুষ এই ভিডিওকে লাইক করে দেয় ও মানুষ এই ভিডিওতে প্রচুর মাত্রায় প্রতিক্রিয়া দেয়। এই ভিডিওতে একজন ব্যক্তি নিজের তৈরি একটি স্কেচের ফটো আপলোড করে বলেন যে ‘আমিও একজন আর্টিস্ট কিন্তু এই বাচ্চা মেয়েটির আঁকা দেখে এখনো আমি বুঝতে পারছিনা একসাথে ও একই সময়ে পেনের অবস্থান পরিবর্তন না করে কি করে কেউ ১৫ টি স্কেচ বানিয়ে ফেলতে পারে? কেউ যদি আমাকে বোঝাতে পারেন যে এটা কি করে সম্ভব তবে আমি আগ্রহী শুনতে’, আরেকজন ইউজার লিখেছেন “অদ্ভুত! সত্যি আমার কাছে কোনো শব্দ নেই এটার বিষয় কিছু বলার”, তারপর অন্য একজন ইউজার লিখেছে “মেয়েটি সত্যি আশ্চর্যজনক কাজ করে দেখিয়েছে।”

Related Articles

Back to top button