একসময় কলকাতার রাস্তায় রাস্তায় ডিম পাউরুটি বিক্রি করেছিলেন জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত ফুলন দেবী

বলিউডের একটি চেনা নাম হলো সীমা বিশ্বাস। তিনি তার ক্যারিয়ারে খুব বেশি ফিল্মে কাজ না করলেও যেইকটি ফিল্মে কাজ করেছেন, সেইকটি ফিল্মে নিজের অভিনয় দ্বারা তিনি সকলকে মুগ্ধ করে দিয়েছেন। তার বলিউডের জনপ্রিয় কয়েকটি ফিল্ম হলো বান্ডেড কুইন, আতরঙ্গি রে, বিবাহ, ভূত, হাফ গার্লফ্রেন্ড, কথা নদী, স্ট্রাইক, খামোশি, এক হাসিনা থি ইত্যাদি।

সীমা ব্যান্ডেড কুইন ফিল্মে সীমা ফুলন দেবীর চরিত্র পালন করেছিলেন। ফুলন দেবীর চরিত্রকে ফুটিয়ে তুলতে সাহসী দৃশ্যে অভিনয় করতে পিছপা হননি তিনি। এছাড়া গত বছর ওটিটি প্লাটফর্মে মুক্তি পাওয়া ফিল্ম ‘আতরঙ্গি রে’-তে সারা আলী খানের দিদার চরিত্র পালন করেছিলেন সীমা। তার চরিত্রটি অল্প সময়ের জন্য হলেও বেশ  গুরুত্বপূর্ণ ছিল।

অন্যকোনো অভিনেত্রী থাকলে হয়তো এইটুক সময়ের চরিত্র পাঠ করতো না কিন্তু সীমা প্রমান করে দিয়েছেন যে তার জন্য এটাই প্রধান জিনিস যে তিনি একজন শিল্পী। আর শিল্প তাঁর কাছে সবসময়ই মর্যাদাপূর্ণ ও শিল্পের ছোট-বড় বলে কিছু হয় না। সীমা নিজের গোটা জীবনকেই উৎসর্গ করে দিয়েছে অভিনয়কে। এমকনকি অভিনয়কে ভালোবাসতে গিয়ে ভেঙে গেছিল তার সংসার। পরকীয়ার অপবাদ সহ্য করতে হয়েছিল তাকে। তবে আজ এই আর্টিকেলে সীমার ব্যক্তিগত জীবন নয় বরং তার ওয়ার্ক ফ্রন্টের বিষয় আলোচনা করবো।

সীমা বিশ্বাস একজন বাঙালি। কিন্তু তিনি খুব কম বাংলা ফিল্মে কাজ করেছেন। তাকে বেশিরভাগ আমরা বলিউড ফিল্মেই অভিনয় করতে দেখেছি। তবে সূত্র থেকে খবর পাওয়া গেছে খুব শীঘ্রই সীমাকে আবার ১৩ বছর পর দেখা যাবে বাংলা সিনেমার পর্দায়। সীমা এখন রাজদীপ পাল ও শর্মিষ্ঠা মাইতি পরিচালিত ফিল্ম ‘মন পতঙ্গ’-এ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে অভিনয় করছেন।

এই ফিল্মের শুটিংয়ের খাতিরে যখন কলকাতায় মাতাত্মক পরিমানে গরম পড়েছে আর মানুষ আকাশপানে চেয়ে বসে রয়েছে বৃষ্টির অপেক্ষায়, এমনপরিস্থিতিতে কলকাতার রাস্তায় সীমাকে শুটিং করতে গিয়ে ডিম-পাউরুটি বিক্রি করতে দেখা গেছে। সীমার মতো এক বর্ষীয়ান অভিনেত্রীর চিত্রনাট্যের কারণে এমনপরিস্থিতিতে ডিম-পাঁউরুটিওয়ালি হয়ে যাওয়া নিঃসন্দেহে কুর্নিশের যোগ্য।

সীমা অভিনীত ‘মন পতঙ্গ’ ফিল্মের কাহিনীটি প্রেম ভিত্তিক। গল্পে দুইজন প্রেমিক-প্রেমিকা অত্যাচারের ভয়ে পালিয়ে এসেছে। এই প্রেমিক ও প্রেমিকার লড়াই ও বঞ্চনাকে ঘিরে এগিয়েছে কাহিনী। কলকাতার অচেনা শহরে ফুটপাতে আশ্রয় নিয়েছে প্রেমিক-প্রেমিকা। আর এই ফুটপাতেই ডিম-পাউরুটির দোকান চালায় বর্ষীয়ান মহিলা (সীমা বিশ্বাস)।

তবে এই প্রেমিক ও প্রেমিকাকে কি বাঁচাতে পারবে এই ডিম-পাউরুটি বিক্রিওয়ালি? এই প্রশ্নের উত্তর না হয় ফিল্ম বেরোলেই জানতে পারবেন। সীমা শেষবার বাংলায় দেব ও শ্রাবন্তীর দুজনে ফিল্মে অভিনয় করেছিলেন। এছাড়া সীমা দাপটের সাথে রাজত্ব করেছেন থিয়েটার মঞ্চে। আর কলকাতার বুকে লাগাতার মঞ্চস্থ হয়েছিল রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর রচিত ‘স্ত্রীর পত্র’। কলকাতা সাক্ষী ছিল সীমার মুগ্ধ করা অভিনয়ের।

 

 

 

Related Articles

Back to top button