Smiling Sun: সূর্যদেবের মুখে হাসি, NASA জারি করলো এমন ছবি

আপনারা যদি কখনো ছোটো বাচ্চা দ্বারা তৈরি কোনো আঁকা দেখে থাকেন তখন নিশ্চই খেয়াল করে থাকবেন যে তারা তাদের আঁকায় সূর্যের ছবি বানানোর সময় সূর্যের মুখ চোখ ইত্যাদি বানায় ও তাদের আঁকা সূর্যকে দেখলে মনে হয় সূর্য হাঁসছে। কিন্তু আপনি জেনে অবাক হবে যে বাচ্চারা যে মনে করে সূর্যের মুখ-চোখ রয়েছে সেটা কিন্তু কল্পনা নয়, এটা বাস্তব। অর্থাৎ সূর্যের সত্যি চোখ মুখ রয়েছে ও সূর্য স্মাইল করে। কী বিশ্বাস হচ্ছে না? তবে নাসার তোলা সূর্যের এই ছবিটি দেখেনিন।

নাসার স্যাটেলাইট দ্বারা তোলা এই স্মাইলিং ছবিটি হেয় দেখছে সেই অবাক হয়ে যাচ্ছে। সূর্যের উপর এমন একটি প্যাটার্ন দেখতে পাওয়া যাচ্ছে যার পর মনে হচ্ছে যে সূর্য স্মাইল করছে। আমেরিকার মহাকাশ এজেন্সি এই ছবিটিকে শেয়ার করে একে স্মাইলিং সান (Smiling Sun) বলেছে। নাসা টুইট করে বলেছে যে নাসার সোলার ডায়নেমিক্স অবসার্ভেটারী সূর্যকে হাঁসতে দেখেছে। আল্ট্রাভায়োলেট লাইটে দেখার পর সূর্যের মধ্যে দেখতে পাওয়া এই কালো দাগ গুলিকে কোরোনাল হোল বলা হয়। এটি সেইসব এলাকাতে হয় যেখানে দ্রুত গতি সৌর হওয়া বয়ে মহাকাশের দিকে যায়।

NASA

NASA এর Solar Dynamics Observatory (SDO) এর উদেশ্য হলো কিভাবে সৌর ক্রিয়াকলাপ গঠন করে এবং কীভাবে এটি মহাকাশের আবহাওয়াকে প্রভাবিত করে তা তদন্ত করা। এই মিশনটি ১১ ফেব্রুয়ারী ২০১০ এ চালু করা হয়েছিল। এই অবজার্ভেটারী স্পেসক্রাফট সূর্যের অভ্যন্তরীণ গঠন, বায়ুমণ্ডল, চৌম্বক ক্ষেত্র এবং শক্তি উৎপাদন পরিমাপ করে।

NASA এই ছবিটি সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করার সাথে সাথেই মানুষের থেকে দুর্দান্ত প্রতিক্রিয়া পেয়েছে। অনেকেই এই ছবিটিকে হ্যালোইন কুমড়ার সাথে তুলনা করেছেন। আর ভারতে ছট উৎসবের সময় সূর্যের এই ছবি মানুষকে আরও রোমাঞ্চিত করছে। সূর্য দেবতা কে প্রসন্ন দেখাচ্ছে!

কিন্তু বৈজ্ঞানিক দৃষ্টিকোণ থেকে যদি দেখা হয় তবে এই হাসির পিছনে একটি সতর্কতা লুকিয়ে আছে। বিশেষজ্ঞরা সতর্ক করেছে যে সূর্যের করোনাল হোল গুলিকে যেমন দেখতে লাগছে তার অর্থ হলো সূর্যে ওঠা ঝড় পৃথিবীতে এসে টক্কর দিতে পারে। স্পেসওয়েদার ডটকম বলছে যে এই স্মাইলিং সূর্য (Smiling Sun)পৃথিবীর দিকে সৌর বায়ুর তৃতীয় প্রবাহ বয়িয়ে চলেছে।

Smiling sun

সৌর ঝড় হল সূর্যের পৃষ্ঠ থেকে উদ্ভূত বিভিন্ন ধরণের ভর এবং শক্তির বিস্ফোরণ। এটি পৃথিবীর চৌম্বক ক্ষেত্রের উপর প্রভাব ফেলে। যার ফল হল এই ঝড়ের কারণে উত্তর ও দক্ষিণ গোলার্ধে মেরু আলো বেশি দেখা যায়। এই পোলার লাইটগুলিকে অরোরাও বলা হয়ে থাকে।

জানিয়ে দি যে সোলার ডায়নামিক্স অবজার্ভেটারীও ২০১৪ সালে সূর্যের একটি ছবি তুলেছিল যেখানে সূর্যকে খুব বিপজ্জনক দেখাচ্ছিল। আর সেই ছবিটিও তোলা হয়েছিল অক্টোবর মাসে, হ্যালোউইন ডে-র কাছাকাছি সময়। সূর্যের সেই ছবিটা বেশ ভীতিকর লাগছিল।

Related Articles

Back to top button