কী কারনে হঠাৎ করে বিশ্বের দীর্ঘতম যাত্রীবাহী ট্রেন তৈরি করল সুইজারল্যান্ড, ছবিতেই লুকিয়ে রয়েছে উত্তর!

বিশ্বের দীর্ঘতম যাত্রীবাহী ট্রেন তৈরি করল সুইজারল্যান্ড

বিশ্বের বৃহত্তম রেল ব্যাবস্থা হলো ভারতীয় রেল। এ দেশে রয়েছে অসংখ্য ট্রেন রুট ও ট্রেন। ভারতের রেল পরিষেবা বিপুল পরিমাণ যাত্রী বহন করে। তবে এবার বিশ্বের সবচেয়ে লম্বা যাত্রীবাহী ট্রেন হিসাবে রেকর্ড (Record) করলো সুইজারল্যান্ডের (Switzerland) বিখ্যাত রেল কোম্পানি। সম্পতি অসংখ্য পর্যটক নিয়ে আল্পস পর্বতের (Alps Mountain) নৈসর্গিক পর্যন্ত যাত্রা করে এই ট্রেন। আজকের প্রতিবেদনে আপনাদের এ নিয়ে বিস্তারিত তথ্য দেব। চলুন বিশ্বের দীর্ঘতম যাত্রীবাহী ট্রেন ( Longest Passenger Train) সম্পর্কে জেনে নিন।

Switzerland

সুইজারল্যান্ডে চললো বিশ্বের দীর্ঘতম রেল। সুইজারল্যান্ডের রাইটিয়ান রেলওয়ে কোম্পানি (The Rhaetian Railway Company) ১০০টি কোচ বিশিষ্ট ট্রেন চালায়।যা প্রায় ২কিমি দৈর্ঘ্য বিশিষ্ট। এই কোম্পানি সুইস রেলওয়ের সঙ্গে যুক্ত। প্রসঙ্গত, সুইস রেল এই বছর ১৭৫ বছর পূর্তি উৎযাপন করছেন। এই কারণে রাতিয়ান রেলওয়ে বিশ্ব রেকর্ড করার জন্য এই ট্রেন চালায়। ট্রেনটি অনেক দৈর্ঘ্যের, ফলে অনেক মানুষ এই ট্রেনে চড়ার সুযোগ পান। ট্রেনটিতে প্রায় ৪৫৫০টি আসন রয়েছে। ট্রেনটি পুরানো সব রেকর্ড ভেঙে নতুন ভাবে রেকর্ড করলেন।

প্রসঙ্গত, দীর্ঘতম এই ট্রেনটি তৈরি করেছেন রাইটিয়ান রেলওয়ে কোম্পানি। জানা গিয়েছে, ট্রেনটি ২২টি টানেল ও ৪৮টি সেতুর মধ্যে দিয়ে গিয়েছে। এটি ইউনেস্কো ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ আলবুলা/বার্নিনা রুটে চলেছে। ২০০৮ সালে এই স্থানটিকে
ইউনেস্কো বিশ্ব ঐতিহ্যবাহী স্থান হিসাবে মনোনীত করেছিলো। রুটটি খুবই সুন্দর, যা সারা বিশ্বের কাছে বেশ আলোচিত। সুইস রেলওয়ের কর্মকর্তাদের মতে, “এই বিশেষ ট্রেনে ভ্রমণ করে আপনি বিশ্বের সবচেয়ে সুন্দর রেলপথটিও উপভোগ করতে পারবেন।”

longest train

দীর্ঘ এই ২কিমি ট্রেনটি চালাতে সময় লেগেছে ১ ঘন্টা। আল্পস পর্বতমালার মধ্য দিয়ে প্রায় 25 কিলোমিটার রাস্তা অতিক্রম করেছে। এর প্রধান কারণ ট্রেনটির ২৫টি বিভাগ ওই রাস্তার মধ্যে দিয়ে স্পষ্ট দেখা যাবে। দীর্ঘ এই ট্রেনটি দেখার জন্য অসংখ্য মানুষ উপত্যকায় দাড়িয়ে ছিল। এ নিয়ে রাইটিয়ান রেলওয়ের সিইও জানিয়েছেন যে, “আমরা আমাদের সুন্দর ইউনেস্কো ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ সম্পর্কে সচেতনতা বাড়াতে এই ট্রেনটি চালিয়েছি।”

longest Country

Related Articles

Back to top button