একটা সময় ছিল যখন এই ব্যক্তি করতেন ১০ হাজারের কাজ, সাধারণ শুরু থেকেই আজ গড়ে তোলেন ৫০০ কোটি টাকার কোম্পানি

আমাদের আজকের গল্পটি এমন একজন ব্যক্তির সম্বন্ধে যিনি ৯০ এর দশকে সমস্ত চ্যালেঞ্জকে অতিক্রম করে সাফল্যের একটি দুর্দান্ত সাম্রাজ্য গড়ে তুলেছিলেন। ৫৬ বছর বয়সী রবীন্দ্র জগতাপের (Rabindra Jagpat) জন্ম পুনেতে একটি সম্ভ্রান্ত মধ্যবিত্ত পরিবারে। তার বাবা-মায়ের চার সন্তানের মধ্যে একজন যিনি ইঞ্জিনিয়ারিং ডিগ্রীই লাভ করেন তিনি ছিলেন রবীন্দ্র (Rabindra)।

তিনি অনেক কষ্টের মধ্যে ইঞ্জিনিয়ারিং পড়া শেষ করেন। তারপর পড়াশোনা শেষ করেন, তার সামনে সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ ছিল চাকরি পাওয়া। কয়েক বছর চাকরি খোঁজার পর রবীন্দ্র মেটাচেম নামে একটি কোম্পানিতে চাকরি পান এবং পরের বছর বিয়ে করেন। ১৯৯৫ সালে হঠাৎ রবীন্দ্রের কোম্পানির মালিক মারা যান। এরপরই ব্যবসাকে নতুন পথে নিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় কোম্পানিটির নতুন ব্যবস্থাপনা।

তার পরামর্শদাতার মৃত্যু এবং কোম্পানিতে দ্রুত পরিবর্তনের কারণে, রবীন্দ্র তার চাকরি ছেড়ে দেন। এই সময়টা রবীন্দ্রের জীবনে খুবই গুরুত্বপূর্ণ ছিল। পরিবারের যত্ন নেওয়া এবং নতুন কর্মসংস্থান খুঁজে পাওয়া রবীন্দ্রের জন্য একটি ভারী বোঝা হয়ে ওঠে। রবীন্দ্রের আশাই তাকে আত্ম-কর্মসংস্থানের কথা বিবেচনা করতে প্ররোচিত করেছিল। তবে সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ ছিল কোনো ওয়ার্কিং ক্যাপিটাল ছাড়াই কিছু শুরু করা।

রবীন্দ্রকে নতুন কিছু করার চেষ্টা করতে হয়েছিল। প্রাথমিক গবেষণার পরে, তিনি সিদ্ধান্ত নেন যে তিনি ফার্মা সেক্টরে ব্যবহৃত উপাদানগুলির সাথে সম্পর্কিত ব্যবসা করবেন। অ্যাস্ট্রিড ইন্টারন্যাশনালের ব্যানারে রবীন্দ্র তার স্বপ্নের ভিত্তি স্থাপন করেছিলেন। ১৯৯৭ সালে, তখন কোম্পানিটি শুধুমাত্র একটি পণ্য ‘মেটফর্মিন এইচসিএল’-এর লেনদেন করত। তিনি এপিআই পণ্যের উপর গবেষণা করেছিলেন, যা অন্যান্য দেশে রপ্তানি করা যেতে পারে।

রবীন্দ্র ট্রেড ডিরেক্টরির সাহায্যে জাতীয় সরবরাহকারী এবং আন্তর্জাতিক ক্লায়েন্টদের সনাক্ত করতে লাইব্রেরিগুলি পরিদর্শন করতে থাকেন। এটি ছিল প্রাক-ইমেইলের যুগ এবং তখন ডাকযোগ ছিল যোগাযোগের একমাত্র মাধ্যম। পোস্টের মাধ্যমে উত্তর পেতে দুই মাস অপেক্ষা করতে হয়েছে। দীর্ঘ প্রতীক্ষার পরও আন্তর্জাতিক কোনো কোম্পানির কাছ থেকে জবাব পাননি তিনি।

রবীন্দ্র কিছুতেই হাল ছাড়েননি এবং ছোট থেকে বড় খদ্দের খোঁজার জন্য অবিরাম কাজ করতে থাকেন। ১৯৯৭ সালে অস্তিত্বের জন্য শুরু হওয়া কার্যকলাপটি ইতিমধ্যেই প্রথম বছরে ২০ লক্ষ টাকার ব্যবসা করেছে। আজ অ্যাস্ট্রিড গ্রুপের বার্ষিক টার্নওভার ১৫০ কোটি টাকা এবং মূল্য ৫০০ কোটি টাকারও বেশি৷ কোম্পানির উৎপাদন ইউনিট মহারাষ্ট্রের মালাদ এলাকায় অবস্থিত।

প্রতিষ্ঠানটির গবেষণা শাখা প্রতিনিয়ত নতুন নতুন পণ্য নিয়ে গবেষণা করছে। ভারত, চীন এবং দুবাইতে এর অফিস সহ – অ্যাস্ট্রিড বিশ্বের ৫০ টিরও বেশি দেশে রপ্তানি করছে। সংস্থাটি পরিবেশগত টেকসইতা আনার অভিপ্রায়ে একটি নতুন গ্রিনফিল্ড উৎপাদন সুবিধার কাজও শুরু করেছে। ৫০ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত হচ্ছে এই নতুন ইউনিট।

সংস্থাটি পরিবেশগত টেকসইতা আনার লক্ষ্যে একটি নতুন গ্রিনফিল্ড উৎপাদন সুবিধার কাজও শুরু করেছে। ৫০ কোটি টাকা ব্যয়ে এই নতুন ইউনিটটি নির্মাণ করা হচ্ছে। বর্তমানে, রবীন্দ্রের এই সংস্থাটি ভারত এবং বিশ্বব্যাপী প্রায় সমস্ত বড় ফার্মা কোম্পানির সাথে কাজ করছে।

Related Articles

Back to top button