বক্স অফিসে আয়ের দিক থেকে আবারো মুখ থুবড়ে পড়ল বলিউড ফিল্ম, সুপার ডুপার ফ্লপ কঙ্গনা’র ধাকড়

বলিউড অভিনেত্রী কঙ্গনা রানাউত (Kangana Ranaut) অভিনীত সদ্য মুক্তিপ্রাপ্ত ছবি ‘ধাক্কড়’ মুক্তির প্রথম দিন থেকেই সিনেমাহলে দর্শক টানতে চরম ভাবে ব্যার্থ হয়েছে। একিসঙ্গে মনে করা হচ্ছে কঙ্গনার এই সিনেমাটিই বলিউডের সর্বকালের সবচেয়ে বড় ফ্লপ সিনেমা হতে চলেছে। সিনেমাহল গুলি ছবিটির দর্শকের অভাবে তাদের শো এবং পর্দার সংখ্যাও কমিয়ে দিচ্ছে। কিছুদিন আগে মুম্বাইয়ের বিখ্যাত মারাঠা মন্দির থিয়েটারের একটি শোতে ‘ধাক্কাড়’ চলছিল কিন্তু পরে তা সরিয়ে ফেলা হয়েছে এবং তার জায়গায় কার্তিক আরিয়ানের ‘ভুল ভুলাইয়া 2’ দেখানো হচ্ছে।

 

কঙ্গনা রানাউত অভিনীত ‘ধক্কড়’ ছবিটি মুক্তির
প্রথম সোমবারে মাত্র ৩০ লক্ষ টাকা আয় করেছিল এবং এই ছবির প্রথম চার দিনের মোট সংগ্রহ ছিল মাত্র ৩.৫৭ কোটি টাকা। এরপর ধীরে ধীরে আয়ের গতি কমতেই থাকে এবং দ্বিতীয় সপ্তাহে এসে কঙ্গনার অ্যাকশন-থ্রিলারটির সংগ্রহ এমনএক শোচনীয় জায়গায় পৌঁছেছে যা সত্যিই হতাশাজনক। ভারতীয় বক্সঅফিসের প্রতিবেদন অনুযায়ী ২৭ মে অর্থাৎ দ্বিতীয় শুক্রবার সারা দেশে ‘ধক্কড়’ মাত্র ২০ টি টিকিট বিক্রি করতে পেরেছে এবং ৪,৪২০ টাকা উপার্জন করেছে। অন্যদিকে কার্তিক আরিয়ান-কিয়ারা আদভানি অভিনীত হরর কমেডি ‘ভুল ভুলাইয়া 2’ ভারতীয় বক্স অফিসে রমরমিয়ে ব্যবসা করছে এবং এখনো পর্যন্ত ৯৮.৫৭ কোটি টাকা আয় করে ফেলেছে।

রজনীশ ঘাই পরিচালিত ‘ধক্কড়’ ছবিতে অভিনেত্রী কঙ্গনা রানাউত একজন গুপ্তচরের ভূমিকায় অভিনয় করেছেন। ছবিতে তার সঙ্গে রয়েছেন অর্জুন রামপাল এবং দিব্যা দত্তের মতো প্রতিভাবান অভিনেতারা। দুর্ভাগ্যবশত ছবিতে দুর্দান্ত অ্যাকশন সিকোয়েন্স থাকা সত্ত্বেও,ছবিটি দর্শকদের সিনেমা হলে আনতে ব্যর্থ হচ্ছে। সেইসঙ্গে জানিয়ে রাখি, ভারতে এরকম ছবি খুব কমই সফল হয়েছে যেখানে একজন মহিলাকে ফিল্মের হিরো হিসাবে দেখানো হয়েছে। একমাত্র ১৯৯২ সালে রেখা অভিনীত ‘ফুল বনে আঙ্গারে’ ছবিটি এই ক্ষেত্রে সফল হয়েছিল। কিন্তু তার পর থেকে নারী কেন্দ্রিক অ্যাকশন ফিল্মগুলি বিশেষ সফলতা পায়নি। তাই এটাকেই ‘ধক্কড়ের’ ব্যার্থতার অন্যতম কারণ বলে মনে করছেন অনেকে।

‘ধক্কড়’ হিন্দি সিনেমার সবচেয়ে ব্যয়বহুল মহিলা কেন্দ্রিক চলচ্চিত্রগুলির মধ্যে একটি এবং এটিই সর্বকালের সবচেয়ে বড় লোকসান প্রমাণিত হতে চলেছে নির্মাতাদের জন্য। প্রায় ১০০ কোটি টাকা বাজেটের ছবিটি যেভাবে আয় করছে তাতে এর প্রোডাকশন খরচের অর্ধেক টাকা তোলাও কোনোদিন সম্ভব হবে না। এছাড়া এই ছবির ফ্লপ হওয়ার কারণে কঙ্গনার ক্যরিয়ারে বড়সর প্রভাব পড়বে। যদিও হিসাব অনুযায়ী এটি কঙ্গনার ৮ম ফ্লপ ছবি কারণ ‘তনু ওয়েডস মনু রিটার্নস’-এর পর কঙ্গনার কোনও ছবিই বক্স অফিসে চমক দেখাতে পারেনি। আর এই ছবিরও যে বক্সঅফিস পরিসমাপ্তি যে খুবই হতাশাজনক হতে চলেছে তা ইতিমধ্যেই আন্দাজ করা যাচ্ছে।

Related Articles

Back to top button