সাংবাদিকতার চাকরি ছেড়ে ৩ তলা বাড়ি কে হাইড্রোপনিক ফার্মিং এ রূপান্তর করে মাস গেলে করছেন লাখ লাখ টাকা আয়

আজকাল ফল এবং শাকসবজি বাড়াতে আরও রাসায়নিক ব্যবহার করা হচ্ছে। এ কারণে উৎপাদন ভালো হচ্ছে কিন্তু তা আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য খুবই ক্ষতিকর। এমন পরিস্থিতিতে অল্প সচেতন মানুষ জৈব চাষের দিকে ঝুঁকছেন। কেউ কেউ আরও রাসায়নিক মুক্ত খাদ্য সামগ্রী খাওয়ার জন্য বাড়িটিকে বাগানে পরিণত করে। আজকের গল্পটি এমন একজন ব্যক্তিরও যিনি একটি তিন তলা বাড়িটিকে একটি খামারে রূপান্তরিত করেছেন এবং বার্ষিক ৭০ লক্ষ টাকা আয় করছেন।

রাসায়নিকের ক্ষতি থেকে গৃহীত জৈব চাষের সিদ্ধান্ত

উত্তরপ্রদেশের বরেলির বাসিন্দা রামবীর সিং ফ্রিল্যান্স সাংবাদিকতার চাকরি করতেন। তবে তার জীবনে একটা সময় আসে যখন সবকিছু বদলে যায়। আসলে ২০০৯ সালে তার এক বন্ধুর কাকু ক্যান্সারে আক্রান্ত হন। চিকিৎসার সময় চিকিৎসকরা এই রোগের কারন কীটনাশক বলে জানান। ডাক্তারের কথা শুনে তিনি খুব অবাক হয়েছিলেন এবং এটাই তার জীবনের টার্নিং পয়েন্ট ছিল।

আপনি জানেন যে, শস্য বৃদ্ধিতে রাসায়নিকের ব্যবহার আমাদের স্বাস্থ্যের উপর খুব খারাপ প্রভাব ফেলে। শুধু তাই নয়, এর ফলে অনেক মারাত্মক রোগও ঘটছে, যা অনেকেই জানেন না। রামবীর সিং যখন জানতে পারলেন যে কীটনাশক সেবনের ফলে ক্যান্সারের মতো মারাত্মক রোগ হয়, তখন তিনি জৈব চাষ করার সিদ্ধান্ত নেন যাতে তিনি বাজারে পাওয়া রাসায়নিক সমৃদ্ধ সবজি খাওয়া এড়াতে পারেন।

কৃষিকাজের জন্য পূর্ণকালীন সাংবাদিকতার চাকরি ছেড়ে দেন

তবে চাকরি করতে গিয়ে এই কাজটি করা সহজ ছিল না। তাই সাংবাদিকতার চাকরি ছেড়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। এরপর নিজ গ্রামে এসে ফ্রিল্যান্স সাংবাদিকতা শুরু করেন। কৃষিকাজ করার জন্য পর্যাপ্ত সময় পেতে তিনি এই কাজটি বেছে নেন। আজ তার তিনতলা বাড়িটি সবুজে রূপান্তরিত হয়েছে। আজ তারা হাইড্রোপনিক (Hydroponic) পদ্ধতিতে সবজি চাষ করে বছরে লাখ লাখ টাকা আয় করছেন।

হাইড্রোপনিক প্রযুক্তির সাহায্যে কৃষিকাজের ধারণাটি কীভাবে এলো?

মিডিয়া রিপোর্ট অনুসারে, রামবীর সিং ২০১৭-১৮ সালে দুবাই গিয়েছিলেন। যেখানে তিনি তাকে এই কৌশলে কৃষিকাজ করতে দেখেছিলেন। তিনি লক্ষ্য করেছেন যে হাইড্রোপনিক (Hydroponic) চাষের মাধ্যমে চাষের জন্য কোন মাটির প্রয়োজন হয় না। এই কৌশলের মাধ্যমে, কেবলমাত্র জলেই ফসল প্রস্তুত করা যায়। এসব দেখে তিনি চাষাবাদের এই কৌশলে খুবই মুগ্ধ হন। এছাড়া হাইড্রোপনিক (Hydroponic) প্রযুক্তিতে চাষ করলে কীটনাশক দ্বারা সৃষ্ট সংক্রমণও প্রতিরোধ করা যায়।

এ ছাড়া একদিকে যেখানে ঐতিহ্যবাহী কৃষি পদ্ধতিতে বেশি জল ব্যবহার করা হয়, অন্যদিকে এই পদ্ধতির মাধ্যমে চাষাবাদে ৮০% জল সাশ্রয় হয়। যখন তিনি দুবাই থেকে দেশে ফিরে আসেন, এখানেও তিনি ইন্টারনেট কলকাতা ও মুম্বাইয়ের কিছু বিশেষজ্ঞের কাছ থেকে এ সম্পর্কে তথ্য পান। হাইড্রোপনিক চাষের কৌশল সম্পর্কে শেখার পরে, তিনি বরেলির পিলিভীত রোডে অবস্থিত তাঁর পৈতৃক বাড়িতে চাষ শুরু করেন।

এভাবেই হাইড্রোপনিক্স প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয়েছিল
হাইড্রোপনিক টেকনিক দিয়ে চাষের জন্য তিনি প্রথমে বাড়ির খোলা জায়গা এবং বারান্দা বেছে নেন। এরপর পদ্ধতিগতভাবে চাষের জন্য পিভিসি পাইপ ব্যবহার করে কিছু দূরত্বে গর্ত করে জালের পাত্র বসান। এর পরে তিনি সমস্ত পাইপের সাথে অন্যটির উপরে, অর্থাৎ উল্লম্বভাবে যুক্ত হন। এতে গাছে জল দেওয়ার জন্য পাইপের এক প্রান্ত থেকে মোটর দিয়ে জল দেওয়া হয়, যা সমস্ত পাইপে পৌঁছে যায়।

অনেক ধরনের সবজি চাষ করুন

রামবীর সিং ৭৫০ বর্গফুট জুড়ে বিস্তৃত খামারে ১০ হাজারেরও বেশি চারা রোপণ করেছেন। তারা অনেক সবজি চাষ করে যার মধ্যে রয়েছে ওকড়া, বোতল, টমেটো, মরিচ, ক্যাপসিকাম, পালং শাক, ফুলকপি, বাঁধাকপি, মেথি, স্ট্রবেরি এবং সবুজ মটর ইত্যাদি। তিনি জানান, হাইড্রোপনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে সব মৌসুমের সবজি চাষ করেন, যা ব্যবহার করার পাশাপাশি লক্ষাধিক টাকা লাভ হয়। রামবীর সিংয়ের মতে, হাইড্রোপনিক চাষ স্বাস্থ্যকর এবং অন্যান্য চাষের তুলনায় ভাল কারণ এটি পুষ্টিগুলি ভালভাবে শোষণ করে। এছাড়া এখানে ক্ষতিকর কীটনাশক ও মাটি দূষণের ভয় নেই।

বছরে ৭০ লক্ষ টাকা আয় করুন

রামবীর সিংয়ের কংক্রিটের তৈরি ৩ তলা বিল্ডিংটি পাশ দিয়ে যাওয়া লোকদের আকর্ষণের কেন্দ্র হয়ে উঠেছে। বাড়ির দালানের পাশে ঝুলন্ত সবুজ শাকসবজি মানুষের দৃষ্টি আকর্ষণ করে। তিনি “উইম্পা অর্গানিক অ্যান্ড হাইড্রোপনিক্স” নামে একটি কোম্পানি চালান যেখানে তিনি এই চাষ সম্পর্কে তথ্য প্রদান করেন এবং আধুনিক চাষাবাদ করতে সাহায্য করেন। অন্যদিকে, আমরা যদি এই সংস্থার আয়ের কথা বলি, তবে এটি বার্ষিক 70 লক্ষ টাকা।

Related Articles

Back to top button