বিদেশ থেকে ফিরে পাননি চাকরি, পদ্মফুলের চাষ করে প্রতি মাসে উপার্জন করছেন ৩০ হাজার টাকা

বলা হয় একজন ব্যক্তি যদি নিষ্ঠা ও কঠোর পরিশ্রমের সাথে কোনো কাজ করেন, তাহলে সেই ব্যক্তিকে সফল হওয়া থেকে কেউ আটকাতে পারে না। কেউ যদি সফল হতে চায়, তবে কেবল পরিশ্রম ও অধ্যবসায়ের সাথে তার লক্ষ্যের দিকে এগিয়ে যেতে হবে। আজ যে গল্পটি বলা হবে তা কেরালার একজন ব্যক্তির। যিনি টানা ১০ বছর কাতারে স্বাস্থ্যকর্মী হিসাবে কাজ করেছিলেন।

তারপরে সেখানে চাকরি ছেড়ে দিয়েছিলেন এই আশা নিয়ে যে দেশে ফিরেও একই সেক্টরে চাকরি পাওয়া যাবে, কিন্তু তা হয়ে নি। এমতাবস্থায়, এই ব্যক্তি নিরাশ না হয়ে সেই কাজটি শুরু করেছিলেন, যা তিনি শৈশব থেকেই পছন্দ করে আসছেন। তিনি বাগান করা শুরু করেন এবং পদ্মের (Lotus) চারা বিক্রি করতে শুরু করেন। কেরালার এর্নাকুলাম জেলার এলধুস পি. রাজু, যার বয়স ৩৪, তিনি তার ছাদে পদ্মের গাছ লাগিয়েছেন৷

তিনি অনলাইনেও পদ্ম (Lotus) গাছ এবং কন্দ বিক্রি করেন। কাতার থেকে চাকরি ছেড়ে দেশে ফেরার পর এখানেও একই খাতে ভালো চাকরি পাবে বলে আশা ছিল তার। তবে তিনি যা ভেবেছিলেন তা হয়নি। অনেক চেষ্টা করেও কোথাও ভালো চাকরি পাননি। শৈশব থেকেই বাগান করার শখে রাজু আবারও গাছপালার নিয়ে ভাবতে শুরু করেন। তিনি দ্য বেটার ইন্ডিয়াকে বলেন, “আমি পদ্ম (Lotus) দিয়ে বাগান করা শুরু করেছি।

পদ্ম আমার প্রিয় ফুল। আমি বারান্দায় পদ্মফুল বাড়াতে লাগলাম। এ জন্য বাইরে থেকে কন্দ এনেছি। যখন ফুল ফুটতে শুরু করে, আমি সোশ্যাল মিডিয়ায় ছবি পোস্ট করি এবং তখনই আমি পদ্ম গাছের অর্ডার পেতে শুরু করি।” রাজু জানান, ইউটিউবে ভিডিও দেখে পদ্ম চাষ শিখেছেন তিনি। থাইল্যান্ড ও আমেরিকা থেকে পদ্মের চারাও অর্ডার করেছেন।

রাজুর বারান্দায় হাঁড়ি ও প্লাস্টিকের পাত্রে পদ্ম ফুটেছে। তিনি নিয়মিত তাদের ছবি শেয়ার করেন তার সোশ্যাল মিডিয়াতে। তার ফেসবুক পেজে ছবিগুলো দেখে লোকজন তার সঙ্গে যোগাযোগ করে। তিনি বলেন, “বেশিরভাগ উত্তর-ভারত থেকে লোকেরা গাছের জন্য আমার কাছে আসেন। এর পর আমি মানুষকে পদ্মের কন্দ সরবরাহ করি। আমার ক্লায়েন্টদের বেশিরভাগই নিউ দিল্লি, মুম্বাই, কলকাতা এবং পুনেতে থেকে।”

“এছাড়াও কেরালার পালাক্কাদ এবং তিরুবনন্তপুরম থেকেও মানুষ বাড়িতে এসে গাছপালা ও পাত্র কিনেছে।” রাজু বলেন, কন্দের চেয়ে গাছের চাহিদা বেশি। এ জন্য তারা পাত্র থেকে মাটি ও জল বের করে ভালোভাবে প্যাক করে পাঠায়। তিনি বলেন যে পদ্ম গাছ ১২ দিন এবং কন্দ আরও বেশি দিন বাঁচে। গাছপালা পাওয়ার পরে, গ্রাহকদের কেবল সেগুলি আবার পাত্রে লাগাতে হবে। “আমি আমার ক্লায়েন্টদের গাছের যত্ন নেওয়ার টিপসও দিই।” তিনি বলেছিলেন।

তিনি জিজুন কিয়ানবান, ম্যাগনিফিসেন্ট, দা সাজিন এবং ফায়ার বাউল সহ প্রায় ২০ প্রজাতির পদ্ম চাষ করছেন। পদ্ম বাগান থেকে প্রতি মাসে প্রায় ৩০ হাজার টাকা আয় করেন। পদ্ম গাছের দাম ৮৫০ টাকা থেকে ৩৫০০ টাকা পর্যন্ত। তিনি তার পরিবারকে ধন্যবাদ জানান কারণ তাদের সমর্থন না থাকলে তিনি এই ক্ষেত্রে অগ্রগতি করতে পারতেন না।

এ কাজে তার বাবা-মা ও স্ত্রী তাকে সার্বিক সহযোগিতা করেন। তিনি বলেছেন, “আমি যা অধ্যয়ন করেছি, যে ক্ষেত্রটিতে আমার কাজের অভিজ্ঞতা ছিল তা থেকে আমি কাজ শুরু করেছি। এরপরও পরিবারের সবাই আমার বিরোধিতা করেনি বরং আমাকে সমর্থন করেছে। এটা আমার জন্য অনেক বড় ব্যাপার।”

Related Articles

Back to top button