বন্ধুদের কাছে ধার নিয়ে শুরু করেছিল ব্যবসা, নিজের পরিশ্রমের দ্বারা পরিণত করেছে ১৮ হাজার কোটি টাকার কোম্পানিতে

পুঁজি কম হলেও দৃষ্টি বড় হলে শূন্য থেকেও শীর্ষে পৌঁছানো যায়। যা করে দেখালেন যোধপুরের লোহিয়া (Lohia) দম্পতি। যে বর্জ্যকে মানুষ আবর্জনা মনে করে ফেলে দেয়, সেই বর্জ্য দিয়ে হস্তশিল্পের এমন এক সাম্রাজ্য গড়ে তোলেন লোহিয়া (Lohia) দম্পতি, যার বার্ষিক টার্নওভার বর্তমান সময়ে ৪৫ কোটিরও বেশি। শুধু তাই নয়, পশ্চিম থেকে হস্তশিল্প তৈরি করা রাজ্যের প্রথম সংস্থা।

যা পুঁজিবাজারেও তালিকাভুক্ত। আজ ৩৬টি দেশে তাদের হস্তশিল্পের জিনিসের চাহিদা রয়েছে। তাদের বিস্তৃত পরিসর দেখে মানুষ অবাক হয়। মানুষ এসব হস্তশিল্পের জিনিস দিয়ে ছবি তুলছে। গাড়ির বনেট এবং সিট দিয়ে তৈরি সোফা সেটটি মানুষের এত পছন্দ হচ্ছে যে সবাই তাতে বসে পরিবারের ছবি তুলছে। শাস্ত্রীনগরের বাসিন্দা রিতেশ লোহিয়া ২০০৮ থেকে ২০১২ সাল পর্যন্ত অনেক ব্যবসা করেছেন, কিন্তু কোনোটিতেই সাফল্য পাননি।

এ নিয়ে তিনি স্ত্রী প্রীতিকে সঙ্গে নিয়ে বর্জ্য থেকে হস্তশিল্পের সামগ্রী তৈরির ভাবনা নিয়ে কাজ শুরু করেন। কিছু জিনিস তৈরি এবং ওয়েবসাইটে তাদের ছবি আপলোড করেন। তারপর কিছুদিন পর ডেনমার্ক থেকে প্রথম অর্ডার পেলেন তারা। তবে পুরনো ব্যবসায় লোকসানের কারণে অর্ডারের কিছু তৈরির টাকা তার কাছে ছিল না।

তারপর এমন পরিস্থিতিতে এক বন্ধুর কাছ থেকে টাকা ধার নিয়ে প্রথম অর্ডার সম্পন্ন করলেন। এরপর তার হস্তশিল্পের পণ্যের চাহিদা বিদেশে দ্রুত বাড়তে থাকে। রিতেশ বলেছিলেন যে তাঁর সংস্থাই রাজ্যে হস্তশিল্পের সামগ্রী তৈরি করার প্রথম সংস্থা। যা পুঁজিবাজারে রয়েছে। ইউরোপের দেশগুলোতে তাদের পণ্যের চাহিদা বেশি। লোহিয়ার (Lohia) এই ব্যবসা ডিসকভারি এবং হিস্ট্রি চ্যানেলও দেখিয়েছে।

রিতেশ বলেছিলেন যে তিনি স্ট্যান্ড, ডাইনিং টেবিল এবং প্লাস্টিকের ব্যাগ, বস্তা থেকে চেয়ার, রেল, যানবাহন এবং বাসের আবর্জনা থেকে বিছানার চাদর তৈরি করেন। তাদের তিনটি কারখানা রয়েছে। একটি কারখানায় বস্তার বর্জ্য, টেক্সটাইল বর্জ্য এবং প্লাস্টিকের ব্যাগ থেকে হস্তশিল্পের সামগ্রী তৈরি করা হয়। তাদের দ্বিতীয় কারখানায় বাইক, তিন চাকার ও চার চাকার গাড়ির জঞ্জাল থেকে হস্তশিল্পের সামগ্রী তৈরি করা হয় এবং তৃতীয় কারখানায় আসবাবপত্র তৈরি করা হয়।

Related Articles

Back to top button