গত ৮০ বছরের অপেক্ষার অবসান ঘটিয়ে চতুর্থ প্রজন্মে জন্ম নিয়েছে কন্যা সন্তান, গোটা গ্রামজুড়ে পালন করা হল উৎসব

আজও অনেক জায়গায় কন্যা সন্তান জন্ম হলে, খুশি হননা অনেক পরিবার। তবে ব্যতিক্রম নিশ্চয় আছে, অনেক বছর পর কন্যা সন্তান হলো এক পিতার। গোটা পরিবার খুবই খুশি হয়েছে। গোটা গ্রাম সেই আনন্দে অংশ নেন। হসপিটাল থেকে বাড়ি নিয়ে আনা হলো অ্যাঞ্জেলকে নাচ গানের মধ্যে দিয়ে। আসুন বিস্তারিত জেনে নিন।

৮০ সাল বাদ পরিবারে জন্ম হলো কন্যা সন্তানের

মধ্যপ্রদেশের শেওপুর জেলার একটি নগর গণভাদা (Gaanvada) অঞ্চলে কন্যা সন্তানের জন্মকে কেন্দ্র করে উৎসব আয়োজিত হয়েছিল। কুন্দন বৈরাভা মিডিয়াকে জানান যে, তাঁদের পরিবারে ৮০ বছর পর একটি কন্যা সন্তান জন্ম নিয়েছে।

কুন্দন বৈরাভার দুই পুত্র সন্তান রয়েছে

কুন্দন বৈরাভার ছোট ভাইয়ের স্ত্রীয়ের প্রসব যন্ত্রণা শুরু হলে তিনি তাঁকে হাসপাতালে ভর্তি করেন এবং সেখানেই তাঁর ভাইয়ের স্ত্রী একটি কন্যা সন্তানের জন্ম দেন । তাঁর নিজেরও কোনো বোন নেই। তিনি নিজেই দুই পুত্র সন্তানের বাবা। ৮০ বছর পর এই প্রথম তাদের পরিবারে জন্ম নিল কন্যা সন্তান এবং এই কারণে সারা পরিবার এখন আনন্দে মেতে উঠেছে।

মেয়েরাও কোনো অংশে ছেলের থেকে কম নয়

কুন্দন বৈরাভা মিডিয়াকে বলেছেন, এমন অনেক পরিবার আছে যেখানে কন্যাসন্তানের জন্ম হলে তারা হতাশ হয়ে পড়েন, খুশি হন না। কিন্তু কন্যারাও পুত্রের চেয়ে কোনো অংশে কম নয়। ” যদি আমরা মেয়েদের ভালোভাবে লালন-পালন করি এবং তাকে ভালো মানুষ গড়ার পাশাপাশি সুশিক্ষিত করে তোলার সুযোগ দিই, তবে সেও সফল ভাবে নিজের খ্যাতি অর্জন করতে পারে।”

নবাগত কন্যাকে আরতির মাধ্যমে স্বাগতম জানানো হয়

নবাগত কন্যা সন্তান বাড়িতে প্রথম প্রবেশ করার সময় সারা ঘর ফুল দিয়ে সাজানো হয়। নবাগত কন্যা এবং তার মাকে ফুলের মালা দিয়ে বরণ করা হয়। শুধু তাই নয় ডিজে বক্স বাজিয়ে সকলে আনন্দে মেতে ওঠেন এবং নবজাতককে আরতি করে স্বাগতম জানান পরিবারের সদস্যরা।

লক্ষ্মী রূপে বাড়িতে এলেন কন্যা সন্তানটি

নবজাতক কন্যাটির পায়ে আলতা লাগিয়ে সাদা কাপড়ে ছোট্ট ছোট্ট পায়ের ছাপ নেওয়া হয়,এই স্মৃতি সংরক্ষণ করে রাখার জন্য । এই বাড়িটির প্রতিটি কোনা খুশিতে পরিপূর্ণ হয়েছে এবং পরিবারের সকল সদস্য আনন্দে মেতে উঠেছেন। পরিবারের বক্তব্য তাঁদের বাড়িতে স্বয়ং দেবদূত রূপে মা লক্ষ্মী এসেছেন।

 

Related Articles

Back to top button