খাবারের নামের সাথে জড়িত সিনেমার নাম, সালমান খানের ফ্যানেরা বানিয়ে ফেলল “ভাইজান রেস্টুরেন্ট”

বলিউডের দাবাং খান ভাইজান সালমান খানের ভক্ত ছড়িয়ে আছে সারা বিশ্বে, একইভাবে মুম্বাইয়ের বান্দ্রা এলাকায় ‘ভাইজান’ নামে একটি রেস্তোরাঁও চালু করেছেন তার ভাইজানের চার ফ্যান। তবে এটাকে রেস্তোরাঁ বললে ভুল হবে কারণ এটা রেস্টুরেন্টের থেকে একটি যাদুঘর হিসেবে বেশি পরিচিত, যেখানে আপনি সালমান খানের প্রিয় খাবারের পাশাপাশি তার ফিল্মোগ্রাফি দেখতে পাবেন।

পুরো রেস্তোরাঁ তার বিখ্যাত সংলাপ, তার প্রিয় জিনিসপত্র, পোস্টারে পরিপূর্ণ। সালমান খানের ৫৬ তম জন্মদিনে, আসুন জেনে নেওয়া যাক এই রেস্টুরেন্টে সালমানের ভক্তদের জন্য বিশেষ কী কী রয়েছে! গেট থেকে ঢোকার সঙ্গে সঙ্গে দেওয়াল শোভা পাচ্ছে সালমান খানের ছবির বিখ্যাত সংলাপে। সালমান খানের ছবির পোস্টার, মুক্তির তারিখ এবং এর তারিখ সংখ্যার ১০ টাকার নোটই আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দু।

এখনও পর্যন্ত সালমানের সমস্ত ছবির পোস্টার আলাদাভাবে তৈরি করা হয়েছে, যাতে 10 টাকার নোট রাখা হয়েছে এবং সেই নোটে ছবিটি মুক্তির তারিখের নম্বর রয়েছে। সালমানের সব ছবির লুক দেয়ালে লাগানো হয়েছে আলাদা করে। হলিউডের বিখ্যাত ছবি ‘হাল্ক’-এর সুপারহিরোর মতো সালমানের ছবি দিয়ে তৈরি করা হয়েছে সালমানের পেইন্টিং।

বলা যায়, এটি একটি রেস্তোরাঁ হলেও পুরোপুরি সালমানের রঙেই রাঙানো রেস্তোরাঁয় পেইন্টিংয়ের পাশাপাশি কিছু ধাতব নিদর্শনও স্থাপন করা হয়েছে, কারণ সালমান এই ধরনের জিনিস পছন্দ করেন। সালমানের কয়েক ডজন ব্রেসলেটও টেবিলে রাখা হয়েছে, এমনকি গ্যালাক্সি অ্যাপার্টমেন্টে সালমানের বাড়ির মতো একটি বারান্দাও করা হয়েছে।

সালমান খান সাইকেল চালানো এবং শিল্পের প্রতি অনুরাগী। এই কারণেই রেস্তোরাঁর ঝাড়বাতিটি একটি সাইকেল চেইন দিয়ে ডিজাইন করা হয়েছে, অন্যদিকে টেবিলগুলি সাইকেল চেইনের রিম থেকে ডিজাইন করা হয়েছে। হোটেলের ম্যানেজার প্রদীপ সাহু বলেন, ‘আমরা আমাদের মেনুটিকে একটি কমিক বইয়ের মতো ডিজাইন করেছি, যা দেখতে বেশ মজাদার। এমনকি খাবারের আইটেমগুলোকেও তাদের ছবির নামের মতোই নাম দেওয়া হয়েছে।

‘ভাইজান’-এর এই রেস্তোরাঁয় ডিম আপনা আপনা, দাবাং ১ মাটন, দাবাং ২ চিকেন, চুলবুল চাওয়াল, গরম চায়ের কাপ, জয় হো ভেজ বিভাগ। সালমানের পছন্দের মাটন বিরিয়ানি, বড়া চিকেন, মাটন চাপও এখানে পরিবেশন করা হয় ভিন্নভাবে। ম্যানেজার জানান, সালমান ভাইয়ের ছবি মুক্তির দিন এবং জন্মদিনে প্রচুর ভিড় হয়। সালমান ভাইও অনেকবার এসেছেন এখানে। তার প্রিয় খাবারগুলি হল মাটন বিরিয়ানি, বড়া চিকেন এবং মাটন চাপ।

ম্যানেজার প্রদীপ জানান, সালমানের ভক্ত চার বন্ধু মিলে এই রেস্তোরাঁটি চালু করেছেন। সালমান ভাই যে স্কুলে পড়াশুনা করেছিলেন সেই স্কুল থেকে এই চার বন্ধু বান্দ্রার সেন্ট স্ট্যানিসলাস হাই স্কুল থেকেও পাশ করেন। তারপর চারজনই একসঙ্গে এই রেস্তোরাঁ শুরু করেন যার নাম ছিল ভাইজান।

Related Articles

Back to top button