মাত্র ২৩ বছর বয়সে গুগলে চাকরি পেলেন বাংলার ছেলে, মাসিক বেতন দেড় কোটি টাকা

যেখানে দেশে প্রতি দিন মানুষ চাকরি খুঁজে বেড়াচ্ছে ঠিক সেই সময়ই অন্যদিকে একজন যুবক পেয়ে গেলো দেড় কোটি টাকার চাকরি। অসম্ভব কে সম্ভব করে তুললো বাংলারই এক যুবক। নদিয়ার কৃষ্ণনগর (Krishnanagar) ঘূর্ণির মধ্যবিত্ত পরিবারের ছেলে দেবর্ষি মৈত্র (Debarshi Mitra)। হঠাৎই গুগল থেকে চাকরির খবর পেয়ে বেজায় অবাক হয়েছিলেন বছর ২৩ এর দেবর্ষি মৈত্র (Debarshi Mitra)।

জানা গছে খুব তাড়াতাড়ি দেশ ছেড়ে বিদেশ অর্থাৎ লন্ডনে পাড়ি দেবেন তিনি। মাত্র ২৩ বছর বয়সে ছেলের এমন সাফল্যে স্বাভাবিকভাবেই গর্বিত দেবর্ষির বাবা বাদল মৈত্র। ছোটবেলা থেকেই ছেলে-মেয়ের পড়াশুনোর দায়িত্ব ছিল তাদের বাবারই জানান বাদল মৈত্র। তার পিতা ছিলেন গৃহশিক্ষক এবং বর্তমানে ব্যবসায়ী। তবে ছেলে যে কোটি টাকার চাকরি পাবে, তা কল্পনা করতে পারেন নি দেবর্ষির মা বকুল মৈত্র।

জানা গিয়েছে, ঘূর্ণির একেবারে সাদামাটা, নিম্ন মধ্যবিত্ত পরিবারের সন্তান দেবর্ষি মৈত্র। তাঁর বাবা বাদল মৈত্র বর্তমানে গ্রিলের দোকানের ব্যবসায়ী, মা গৃহবধূ। তাঁর দিদি একজন স্কুল শিক্ষিকা। কৃষ্ণনগর হাই স্কুল থেকে মাধ্যমিক পরীক্ষায় পাশ করে কৃষ্ণনগর কলেজিয়েট স্কুলে ভর্তি হন দেবর্ষি। সেখান থেকেই উচ্চ মাধ্যমিক পাশ করে জয়েন্ট পরীক্ষা দিয়ে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রোডাকশন ইঞ্জিনিয়ারিং ভর্তি হন তিনি।

তারপর স্নাতক স্তরে চতুর্থ বর্ষের পরীক্ষা শেষে দেবর্ষি নিজেই গুগল-এর সঙ্গে যোগাযোগ করেন। তবে গুগলের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়া তার কাছে খুব একটা সহজ ছিল না। একের পর এক পরীক্ষা দিয়ে যেতে হয় তাকে। সমস্ত পরীক্ষা পেরিয়ে অবশেষে মনোনীত হন ঘূর্ণির ওই যুবক। দেবর্ষির সাফল্যে একদিকে যেমন খুশি তার মা-বাবা, অন্যদিকে তাঁর শিক্ষকরাও।

দেবর্ষির মা বকুল মৈত্র বলেন, “ছেলে প্রতিষ্ঠিত হবে এটা জানতাম। এত ভাল, এত বড় চাকরি পাবে এটা ভাবিনি। খুবই সাদামাটাভাবে বড় হয়েছে। তবে ছোট থেকে নিজস্ব চেতনাবোধ ভীষণভাবেই ছিল। নিজের তাগিদেই আজ এই জায়গায় পৌঁছেছে।” দেবর্ষি শুধু গুগল নয়, বেঙ্গালুরুর একটি বড় কোম্পানি থেকে অ্যামাজনেও চাকরি পেয়েছিলেন বলে জানা গেছে। তবে গুগল সবচেয়ে বড় সংস্থা হওয়ায় সেখানেই যোগ দিচ্ছেন দেবর্ষি। তাঁর পোস্টিং পড়েছে লন্ডনে। দেবর্ষির সাফল্যে একদিকে যেমন খুশি তার মা-বাবা, অন্যদিকে তাঁর শিক্ষকরাও।

Related Articles

Back to top button