মহাকাশ থেকে পৃথিবীতে পড়ল এক বিশাল উল্কা! বিজ্ঞানীদের মনে হল ‘এলিয়ন’র খাজানা

মহাকাশ নিয়ে বিজ্ঞানীদের গবেষণা নতুন কিছু নয়। বছরের পর বছর ধরে চলে আসছে মহাকাশ নিয়ে নানারকম পরীক্ষা নিরীক্ষা। তবে সম্প্রতিকালে এই বিষয়ের সঙ্গে আবার যুক্ত হয়েছে ‘এলিয়েন’ রহস্য। মহাকাশের ঠিক কোন প্রান্তে বসবসা করছেন ‘এলিয়েন’রা, তা জানার আগ্রহ রয়েছে বিজ্ঞানী থেকে প্রতিটি সাধারণ মানুষের।

তবে এসবের মাঝে দুই বছর আগে সোমালিয়ায় যে ১৪ টন ওজনের একটি উল্কাপিণ্ড পড়েছিল, তা থেকে বিজ্ঞানীরা এমন দুটি নতুন ধরনের ধাতুর সন্ধান পেয়েছেন, যা আগে কখনও পৃথিবীতে দেখা যায়নি। এই আকাশ থেকে প্রাপ্ত শিলা পরীক্ষা নিরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছিল আলবার্টা বিশ্ববিদ্যালয়ে। এই দুই ধাতুর নাম ইলালাইট এবং এলকিনস্টান্টোনাইট। তবে ধারণা করা হয়, তৃতীয় একটি ধাতুও পাওয়া গিয়েছে সেখানে।

img 20221201 191222

জানিয়ে রাখি, এই উল্কাপিণদের নাম ‘ইল আলি’ এবং একে ‘আয়রন, আইএবি কমপ্লেক্স’ হিসেবে শ্রেণীবদ্ধ করা হয়েছে। আর এই বিভাগে ৩৫০ টি উল্কাপিণ্ড স্থাপন করা হয়েছে। সৌরজগতের গ্রহগুলি যে তৈরি হয়েছিল তার প্রমাণ সংগ্রহ করতে ট্রিলিয়ন ডলারের ধাতু-বোঝাই সাইকি গ্রহাণুটিতে একটি তদন্ত পাঠাতে চায় নাসা।

এবিষয়ে আলবার্টা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ক্রিস হার্ড একটি বিবৃতি জারি করে জানিয়েছেন, যে আপনি যখনই একটি নতুন ধাতু আবিষ্কার করেন, এর অর্থ হল ভূতাত্ত্বিক অবস্থা, পাথরের রসায়ন আগে যা পাওয়া গেছে তার থেকে আলাদা। এটি উত্তেজনাপূর্ণ করে তোলে। এই বিশেষ উল্কাপিণ্ডে দুটি নতুন ধাতু আবিষ্কৃত হয়েছে যা বিজ্ঞানের জন্য নতুন।

হার্ড আরও বলেন, গবেষকরা উল্কাপিণ্ড থেকে আরও নমুনা পেলে আরও অনেক ধাতু আবিষ্কৃত হতে পারে। উল্কাটি শহরের বাইরে পড়েছিল এবং প্রথমে উটের পশুপালকদের দ্বারা আবিষ্কার হয়েছিল। এই উল্কাটি খুব চৌম্বক এবং আমাদের গ্রহে এর মতো কিছুই পাওয়া যায়নি। হার্ড যখন এই উল্কাপিন্ডের শ্রেণীবিভাগ করছিলেন, তখন তার মনোযোগ এর দিকে গেল। বিজ্ঞানীরা এখন এই ধাতু পরীক্ষা করছেন। শুধু তাই নয়, এটিকে এলিয়নদের খাজানা বলেও মনে করা হচ্ছে।

Related Articles

Back to top button